১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৭ ইং | ১লা পৌষ, ১৪২৪ বঙ্গাব্দ | ২৭শে রবিউল-আউয়াল, ১৪৩৯ হিজরী

দীর্ঘমেয়াদি বাণিজ্যিক ঋণ দিতে ব্যাংক প্রস্তুত নয়

৪২ বছরে পদার্পণ করেছে প্রথম প্রজন্মের বেসরকারি ব্যাংক আইএফআইসি। ১৯৭৬ সালে সরকারি-বেসরকারি অংশীদারত্বে একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান হিসেবে এর যাত্রা। ১৯৮৩ সালে সরকার এটিকে বেসরকারি খাতের ব্যাংক হিসেবে অনুমোদন দেয়। ব্যাংকটির ব্যবসাকৌশল, সার্বিক অবস্থা এবং এ খাতের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন ব্যবস্থাপনা পরিচালক শাহ আলম সারওয়ার। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন সানাউল্লাহ সাকিব

প্রথম আলো: ৪১ বছর পূর্ণ করল আইএফআইসি ব্যাংক। এই সময়ে ব্যবসায় ক্ষেত্রে কোন মডেলকে অনুসরণ করছে ব্যাংক?

শাহ আলম সারওয়ার: আমাদের ব্যবসার মডেল হলো ঝুঁকি বিকেন্দ্রীকরণ করে বেশি মানুষের কাছে সেবা পৌঁছানো। আমাদের ভবিষ্যৎ প্রবৃদ্ধি হবে এসএমই ও মর্টগেজ-ভিত্তিক অর্থায়নের ওপর। ঋণের ঝুঁকিকে বৈচিত্র্যকরণ করা হচ্ছে। এ ছাড়া বড় আমানতের চেয়ে ছোট ছোট আমানতের দিকে লক্ষ রেখে ব্যাংক এগোচ্ছে। ব্যাংক পরিচালনায় মডেল হলো কম স্বাচ্ছন্দ্যে ও কম সময়ে সেবা পৌঁছানো। দেশের বেশির ভাগ গ্রাহক ছোট সেবা নেয়। কম খরচে বেশি মানুষের সেবা পৌঁছানোই এখন প্রধান লক্ষ্য। এ জন্য আমরা বেশ কিছু উদ্যোগ নিয়েছি।

প্রথম আলো: সহজে সেবা দিতে কী ধরনের উদ্যোগ নিচ্ছেন?

শাহ সারওয়ার: ব্যাংকের কাঠামো ঠিক করা হচ্ছে। প্রতিটি কাজকে লক্ষ রেখে যোগ্য ব্যক্তিকে পদায়ন করা হচ্ছে। ব্যাংকে নতুন জনবল নিয়োগে সর্বোচ্চ স্বচ্ছতা বজায় রাখা, আগের কর্মীদের সর্বোচ্চ প্রশিক্ষণ দেওয়া আমাদের লক্ষ্য। এর সঙ্গে প্রতিটি পদের জবাবদিহি কী, তা ঠিক করা হচ্ছে। যাঁরা ভালো করছেন, তাঁদের যথাযথভাবে মূল্যায়ন করা হচ্ছে। আমরা ব্যাংকের প্রতিটি সেবাকে মূল্যায়ন করে গ্রাহকবান্ধব ও ঝুঁকিমুক্ত করেছি। সেবা ও সর্বোচ্চ মানের প্রযুক্তিকে একত্র করে সেবা দেওয়া হচ্ছে। একজন গ্রাহককে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত কত স্বাচ্ছন্দ্যে ও কম সময়ে সেবা দেওয়া যায়, সেদিকে লক্ষ রাখা হচ্ছে।

প্রথম আলো: এ জন্য নতুন কী ধরনের সেবা ও পণ্য চালু করা হয়েছে?

শাহ সারওয়ার: কম সুদে গৃহঋণ বা হোম লোন প্রকল্পে আমরাই পথিকৃৎ। এরপর অন্য ব্যাংকগুলো ওদিকে ঝুঁকেছে। এ খাতে আমরা ২ হাজার ৪০০ কোটি টাকা ঋণ দিয়েছি। সব শাখা ব্যবস্থাপনাকে এমনভাবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে, যাতে সহজেই এ সেবা দেওয়া যায়। একজন গ্রাহক সাধারণত ২১ ধরনের সেবা নিতে ব্যাংকে আসেন। আমরা ওয়ান স্টপ সার্ভিস চালু করেছি। ব্যাংকের যেকোনো কর্মকর্তা যাতে ওই ২১ ধরনের সেবা দিতে পারেন, তার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। গত বছর আড়াই হাজার কর্মকর্তার জন্য পাঁচ হাজার প্রশিক্ষণ অনুষ্ঠান করা হয়েছে। ৫০ জনকে বিদেশে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছে। সবাইকে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। এখন সাধারণ সেবা, ঋণপত্র খোলা সেবা একজন কর্মকর্তাই দিতে পারেন। পৃথক ব্যক্তির কাছে যাওয়ার প্রয়োজন নেই।

ব্যাংকগুলোতে বিভিন্ন ধরনের সেবা নিতে কয়েকটি হিসাব খুলতে হয়। আইএফআইসি ব্যাংক ‘আমার অ্যাকাউন্ট’ নামে একটা নতুন সেবা চালু করেছে। ওই হিসাবে সব ধরনের সেবা পাওয়া যাচ্ছে। আমানত, ঋণ, কার্ড সেবা—সবই মিলবে এ হিসাবে। এক বছরে আমার অ্যাকাউন্ট হিসাব খুলেছেন ৭২ হাজার ব্যক্তি। ব্যাংকের প্রথম ৩৬ বছরে হিসাব ছিল দেড় লাখ, আর এক বছরেই ৭২ হাজার হিসাব খোলা হয়েছে। সব মিলিয়ে আমাদের গ্রাহক ৬ লাখ। ৫ বছরে ব্যাংকের গ্রাহক বেড়েছে তিন গুণ। এর মাধ্যমেই বেশি মানুষের কাছে পৌঁছানোর চেষ্টা চলছে।

প্রথম আলো: আপনি বলছেন, আইএফআইসি ব্যাংক ভালো চলছে, আরও উন্নয়নে নতুন অনেক উদ্যোগ নেওয়া হচ্ছে। কিন্তু ব্যাংক খাতের খেলাপি ঋণ প্রতিনিয়ত বাড়ছে। অর্থাৎ ব্যাংকগুলো দুর্বল হয়ে পড়ছে?

শাহ সারওয়ার: ঋণ খারাপ হয়ে যাওয়া আলাদা একটা বিষয়। এ জন্য কোনো পক্ষকে এককভাবে দায়ী করা যাবে না। ঋণ খারাপের জন্য অনেকগুলো বিষয় দায়ী। আমাদের দেশে ঋণদাতা আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলোর সুরক্ষা নেই। শুধু আইনি সুরক্ষা পাচ্ছি না, তা নয়। একটি পুঁজিবাদী ব্যবস্থায় যে প্রক্রিয়ায় ঋণগ্রহীতা বাছাই করা হয়, তার শুরু পর্যন্ত বাংলাদেশে হয়নি। ক্রেডিট রেটিং, বিশ্বাসযোগ্য আর্থিক প্রতিবেদন, আগের ঋণের হিসাব, আনুষ্ঠানিক টিআইএন নম্বর—এর কোনোটাই বাংলাদেশে নেই। আমরা যারা ঋণের যাচাই করি, তাতেই বড় গলদ থাকছে। ঋণ ব্যবস্থাপনার মধ্যে শৃঙ্খলার অভাব দেখা যাচ্ছে। গ্রাহকেরা ঋণ অন্য খাতে ব্যবহার করছেন, সেটা ফিরিয়ে আনার মতো কোনো ব্যবস্থা নেই। এ কারণে ঋণ খারাপ হলে তা আদায় করার ব্যবস্থা দেশে নেই। দেশে যথাযথ দেউলিয়া আইন আছে কি না, এটা বড় প্রশ্ন।

সোমবার, অক্টোবর ১৬, ২০১৭